গ্রান্ডমাদার অব ইউরোপ

গ্রান্ডমাদার বলতে আমরা বুঝি দাদী বা নানি, যে ব্যক্তিবিশেষের। কিন্তু একটি পুরো মহাদেশের গ্রান্ডমাদার? কিভাবে সম্ভব? আর কেইবা সে গ্রান্ডমাদার?
ইতিহাসের পাতা উল্টালে আমরা গ্রান্ডমাদার অব ইউরোপ হিসেবে দু’জনের নাম পাই এবং দু’জনই সমসাময়িক। একজন হলেন ইংল্যান্ডের রানী ভিক্টোরিয়া (Queen Victoria of United Kingdom), আরেকজন ডেনমার্কের রানী লুইস (Queen Consort Louise of Denmark)। রানী ভিক্টোরিয়ার হাতে দেশের শাষনক্ষমতা ছিল, রানী লুইস বৈবাহিক সুত্রে ডেনমার্কের রানী।

ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের রানী ভিক্টোরিয়া
ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের রানী ভিক্টোরিয়া

রানী ভিক্টোরিয়া মাত্র ১৮ বছর বয়সে ১৮৩৭ সালে ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের সিংহাসনে বসেন। তিনি ১৮৪০ সালে তাঁর মামাতো ভাই প্রিন্স অ্যালবার্টকে বিয়ে করেন। তাঁরা তাঁদের ৪ ছেলে ও ৫ মেয়েকে ইউরোপের বিভিন্ন রাজকীয় পরিবারে বিয়ে দেন। রানী ভিক্টোরিয়া ১৯০১ সালে মারা যান, মৃত্যুর পূর্বে তাঁর নাতী-নাতনীদের কে কোথায় কিভাবে ছিলো তা নিচে বর্ননা দেওয়া হলো।

১। বড় মেয়ে ভিক্টোরিয়ার (মায়ের নামে নাম) বিয়ে হয় ক্রাউন প্রিন্স ফ্রেডেরিক অব প্রুশিয়ার সাথে যে পরবর্তীতে জার্মানীর রাজা হয়।তাঁদের সন্তানদের মধ্যে উইলহেম-II জার্মানীর রাজা এবং প্রিন্সেস সফি ক্রাউন প্রিন্সেস অব গ্রীস (বৈবাহিক সুত্রে)হয়। রানী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর প্রিন্সেস সফি ১৯১৩ সালে গ্রীসের রানী হয়, যিনি হচ্ছেন স্পেনের বর্তমান রানী সোফিয়ার দাদী।

২। বড় ছেলে প্রিন্স অ্যালবার্ট এডওয়ার্ড ডেনমার্কের প্রিন্সেস আলেকজান্দ্রাকে বিয়ে করেন।প্রিন্স এডওয়ার্ড তাঁর মায়ের (রানী ভিক্টোরিয়া) মৃত্যুর পর এডওয়ার্ড-VII নাম নিয়ে ইংল্যান্ডের সিংহাসনে বসেন। রানী ভিক্টোরিয়ার জীবদ্দশায় প্রিন্স এডওয়ার্ডের মেয়ে প্রিন্সেস মাড (Princess Maud) ডেনমার্কের প্রিন্স কার্ল কে বিয়ে করেন, যে পরবর্তীতে Hakoon-VII নাম নিয়ে নরওয়ের রাজা হয় (১৯০৫ সালে রানী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর)। প্রিন্স এডওয়ার্ডের বংশেই ইংল্যান্ডের বর্তমান রানী এলিজাবেথের জন্ম।

৩। তৃতীয় সন্তান প্রিন্সেস অ্যালিস বিয়ে করেন Louis-IV, Grand Duke of Hesse and by Rhine-কে।তাঁদের ছেলে আর্নেষ্ট লুডউইগ (Ernst Ludwig) ১৮৯২ সালে গ্রান্ড ডিউক অব হেসে হয় এবং প্রিন্সেস এলিক্স (Princes Alix)১৮৯৪ সালে রাশিয়ার জার নিকোলাস II-কে বিয়ে করে Empress consort of All the Russias উপাধি ধারন করেন ও নিজের নাম পরিবর্তন করে আলেকজান্দ্রা ফিউডোরোভনা (Alexandra Feudorovna) রাখে্ন। এরাই রুশ বিপ্লবের সময় বলশেভিকদের হাতে সপরিবারে নিহত হোন।

৪। চতুর্থ সন্তান প্রিন্স আলফ্রেড বিয়ে করে্ন রাশিয়ার জার আলেকজান্ডা-II-এর মেয়ে মারিয়া আলেকজান্দ্রোভনা-কে। তাদের মেয়ে প্রিন্সেস মেরী অব এডিনবার্গ ১৮৯৩ সালে বিয়ে করে রুমানিয়ার ক্রাউন প্রিন্স ফার্ডিনান্ডকে, রানী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর ১৯১৪ সালে প্রিন্স ফার্ডিনান্ড রুমানিয়ার রাজা হয়।

রানী ভিক্টোরিয়ার পরিবার
রানী ভিক্টোরিয়ার পরিবার

৫। পঞ্চম সন্তান প্রিন্সেস হেলেনা বিয়ে করে Schleswig-Holstein-এর ক্রাউন প্রিন্স ক্রিস্টিয়ানকে। তাঁদের ছেলে প্রিন্স অ্যালবার্ট রানী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর ১৯২১ সালে The House of Oldenburg-এর প্রধান হয়।( The House of Oldenburg হচ্ছে North German dynasty এবং ইউরোপের প্রভাবশালী রাজকীয় বংশ যারা বিভিন্ন সময়ে ডেনমার্ক, রাশিয়া, গ্রীস, নরওয়ে, সুইডেন শাসন করতো।ডেনমার্কের বর্তমান রানী, নরওয়ের বর্তমান রাজা, গ্রীসের সাবেক রাজা, স্পেনের বর্তমান রানী, গ্রীসের বর্তমান রানী এবং ইংল্যান্ডের বর্তমান রানীর স্বামীও-এই বংশের।)

৬। ষষ্ঠ সন্তান প্রিন্সেস লুইস বিয়ে করেন মারকুইস অব লর্ন জন ডগলাস সুদারল্যান্ড ক্যাম্পবেলকে যিনি রানী ভিক্টরিয়ার সময়েই গভর্নর জেনারেল অব কানাডা হিসেবে মনোনীত হোন। তাঁদের কোনো সন্তান ছিল না।

৭। সপ্তম সন্তান প্রিন্স আর্থার বিয়ে করে্ন প্রুশিয়ার প্রিন্সেস মার্গারেটকে। তাঁদের বড় মেয়ে প্রিন্সেস মার্গারেট (মায়ের নামে নাম)১৯০৫ সালে রানী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর সুইডেনের ক্রাউন প্রিন্স গুস্তাফ এডলফকে বিয়ে করেন।সুইডেনের বর্তমান রাজা কার্ল XVI গুস্তাফের দাদী, ডেনমার্কের বর্তমান রানী মার্গ্রেথে II ও গ্রীসের সাবেক রানী প্রিন্সেস অ্যানি মেরির নানি হচ্ছে্ন এই প্রিন্সেস মার্গারেট।

৮। অস্টম সন্তান প্রিন্স লিওপল্ডের ছেলে প্রিন্স চার্লস এডওয়ার্ড হচ্ছেন সুইডেনের বর্তমান রাজা কার্ল XVI গুস্তাফের নানা।

৯। নবম সন্তান প্রিন্সেস বিয়াত্রিচের মেয়ে প্রিন্সেস ভিক্টোরিয়া ইউজিন ১৯০৬ সালে রানী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর স্পেনের রাজা আলফোনসো XIII-কে বিয়ে করে্ন। স্পেনের বর্তমান রাজা জুয়ান কার্লোস হচ্ছেন প্রিন্সেস ভিক্টোরিয়া ইউজিনের নাতী।

রানী ভিক্টোরিয়ার জীবদ্দশায় তাঁর নাতী-নাতনীরা ইউরোপের বিভিন্ন রাজকীয় পরিবারে থাকায় তাঁদের মধ্যে সম্প্রীতিভাব বিরাজমান ছিল। তাই এই সময়টাতে ইউরোপে তেমন যুদ্ধ-বিগ্রহ ছিল না বললেই চলে। কিন্তু ১৯০১ সালে তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর নাতী-নাতনীদের মধ্যে শত্রুতা বৃ্দ্ধি পায়, ফলশ্রুতিতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের শুরু। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়কার ইংল্যান্ডের রাজা, জার্মানীর সম্রাট, রাশিয়ার জারিনা ও স্কান্ডিনেভিয়ান দেশগুলোর রাজা বা রানীরা ছিলো পরস্পরের চাচাতো/মামাতো/ফুফাতো/খালাতো ভাই-বোন এবং এরা একে-অপরের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেন।

ডেনমার্কের রানী লুইস (Queen consort Louise of Denmark)
ডেনমার্কের রানী লুইস (Queen consort Louise of Denmark)

ইতিহাসের দ্বিতীয় গ্রান্ডমাদার অব ইউরোপ হচ্ছেন ডেনমার্কের রানী লুইস (Queen Consort Louise of Denmark)। তাঁর ছিল তিন ছেলে-ডেনমার্কের ভবিষ্যত রাজা ফ্রেডেরিক-VIII, ভিলহেলম যে পরবর্তীতে গ্রীসের রাজা হয় (জর্জ-I নামে) এবং ভাল্ডেমার। তাঁর মেয়ের সংখ্যাও ছিল তিন-আলেকজান্দ্রা, যে পরে এডওয়ার্ড- VII কে বিয়ে করে ইংল্যান্ডের রানী হয়, ডাগমার-পরবর্তীতে রাশিয়ার জার আলেকজান্ডার- III কে বিয়ে করে রাশিয়ার জারিনা হয়(মারিয়া ফিউডেরভনা নামে) এবং থাইরা, যে হানোভারের ক্রাউন প্রিন্সকে বিয়ে করে।অর্থাৎ রানী লুইসের সন্তানদের মধ্যে দু’জন রাজা, একজন জারিনা, একজন রানী, একজন প্রিন্স ও একজন ক্রাউন প্রিন্সেস-তাকে মনে হয় মাদার অব ইউরোপ বলাই যুক্তিসঙ্গ্ত।

ডেনমার্কের রাজা ক্রিস্টিয়ান-IX
ডেনমার্কের রাজা ক্রিস্টিয়ান-IX

এই প্রসঙ্গে বলা ভালো, ফাদার-ইন-ল অব ইউরোপ (Father-in-law of Europe)ও দু’জন আছেন। একজন হচ্ছেন ডেনমার্কের রানী লুইসেরই স্বামী ডেনমার্কের রাজা ক্রিস্টিয়ান-IX (যেহেতু তাঁর দুই মেয়ের স্বামী হচ্ছে ইংল্যান্ডের রাজা এবং রাশিয়ার জার), আরেকজন হচ্ছেন মন্টিনিগ্রোর রাজা নিকোলাস-I, যার এক মেয়ে এলেনা বিয়ে করেছেন ইটালীর রাজা ভীক্টর ইমানুয়েল-III কে, আরেক মেয়ে জোরকা বিয়ে করেছেন সার্বিয়ার রাজা পিটার-I কে।

মন্টিনিগ্রোর রাজা নিকোলাস-I
মন্টিনিগ্রোর রাজা নিকোলাস-I

কেওয়াইএএমসিএইচ,
৬ই মে, ২০১১

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s