প্রসংঙ্গঃ ছোট হয়ে আসছে পৃথিবী, আওয়ামী পৃথিবী

(বিভিন্ন ব্লগে ওয়াচডগের লেখা-ছোট হয়ে আসছে পৃথিবী, আওয়ামী পৃথিবী এর প্রতিক্রিয়ায় লেখা)

আমি রাজনীতি খুব একটা বুঝিনা, তাই রাজনীতি বিষয়ে কিছু লিখিও না। তবে এ সংক্রান্ত লেখা আমি পড়তে ভালোবাসি। যায় যায় দিন পত্রিকায় এক ওয়াচডগের লেখা পড়তাম (যদি স্মরনশক্তি আমার সাথে প্রতারনা না করে)। আমি তাকে চিনতাম না, জানতাম না, তার সব কথার সাথে এ্কমত হতাম না, আবার কিছু কিছু কথা ফেলতেও পারতাম না, কিন্তু কোনো মন্তব্য করার সুযোগ ছিল না। আমি জানিনা এই ওয়াচডগ আর সেই ওয়াচডগ একই ব্যক্তি কিনা । কিন্তু এখানে যখন সুযোগ পেয়েছি, কিছু লিখতে চাচ্ছি। প্রথমেই আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি পোষ্টের জন্য। আর আমার কোনো কথা যদি আপনাকে কষ্ট দেয়, আমি আগেই আপনার কাছ হতে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি ।

আপনি প্রথমেই লিখেছেন “একটা ব্যর্থ রাষ্ট্রের সীমানা হতে বাংলাদেশ নামক দেশটার অবস্থান কতটা দূরে তা মাপতে বোধহয় যন্ত্রপাতির দরকার হবেনা। চোখ কান খোলা রেখে ৩৬০ ডিগ্রী পরিধিতে তাকালে এর দূরত্ব ও নৈকট্য দুটোই অনুভব করা যাবে”– আমি ঠিক জানি না ব্যর্থ রাষ্ট্র বলতে আপনি কি বুঝাতে চেয়েছেন? আমি রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্র নই, মানুষের মাথায় ছুরি কাচি চালাই । তাই জানিনা বাংলাদেশ ব্যর্থ রাষ্ট্র কিনা, শুধু এ টুকু জানি Bangladesh didn’t loss of physical control of its territory, He has a legitimate authority to make collective decisions, able to provide reasonable public services, and able to interact with other states as a full member of the international community. আমরা কেন জানি না সব সময় কথা বার্তায় নিজের দেশ কে খাটো করতে চাই। আপনি কিছু খুন খারাপী, লঞ্চ ডুবিতে মানুষ মৃত্যু ইত্যাদি আরো উদাহরণ দিয়েছেন, আমিও চাই এসব যাতে না ঘটে কিন্তু এগুলো তো সেই আমাদের অতি আকাঙ্খিত গণতন্ত্রের (১৯৯১ সাল)পর থেকেই হয়ে আসছে- এতে আওয়ামী পৃথিবী ছোট হবে কেনো বুঝতে পারলাম না।

আপনি লিখেছেন ‘যে শান্তিচুক্তির জন্যে নোবেল পুরস্কার পাওয়ার কথা সে ’শান্তির’ রাজ্যই এখন মৃতপুরী। এখানেও লাশ পরছে, পাশাপাশি রাজত্ব করছে ভয়, ভীতি আর সন্ত্রাস নামক নোবেলিয় বিভীষিকা” ।অনেক আগেই শান্তিচুক্তির জন্য নোবেল প্রাইজ পেয়েছেন ইয়াসির আরাফাত, শিমন পেরেজ আর আইজ্যাক রবিন, কিন্তু ফিলিস্তিনের কি অবস্থা এখন? সেখানেও লাশ পরছে, পাশাপাশি রাজত্ব করছে ভয়, ভীতি আর সন্ত্রাস নামক নোবেলিয় বিভীষিকা।

আপনি লিখেছেন “দুদিন আগে সরকার প্রধান সদম্ভে ঘোষনা দিলেন দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিঘ্নিত হলে কঠোর অবস্থানে যাওয়ার। তিন দিকে ভারত আর একদিকে বঙ্গোপসাগরের বিশাল ঢেউ ডিঙ্গিয়ে তৃতীয় কোন দেশ অথবা শক্তি বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিপন্ন করতে আসবে কিনা তা সরকার প্রধানই বলতে পারবেন”। শেখ হাসিনা কি করবেন বলুন তো, আমি তো জন্ম থেকেই অন্য পক্ষ থেকে শুনে আসছি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশ ভারত হয়ে যাবে । তাই হয়তো উনি ভারতকেই লক্ষ্য করে কথাটা বলেছেন, আর আপনি হয়তোবা ভুল বুঝেছেন। ওয়াচডগ ভাইয়া, ভুল আমিও বুঝতে পারি, Please আমার কথায় কিছু মনে করবেন না।

আপনার লেখায় ডঃ ইউনুসের প্রসংগ এসেছে, সময় পেলে আমার এই প্রসংগে লেখার ইচ্ছা আছে। আমি এখানে শুধু বলতে চাই ডঃ ইউনুস নোবেল এনে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্ব্ল করেছেন, তাই বলে উনি যদি কোনো ভুল করেন বা অন্যায় করেন সেটার কি কোনো সংশোধন বা বিচার করা যাবেনা ( আমি কিন্তু বলছি না উনি ভুল বা কোনো অন্যায় করেছেন কিনা)? আমরা ডঃ ইউনুসকে দেবতা বানিয়ে ফেলেছি। হযরত উমরের রাজ্যজয়ে খালিদ বিন ওয়ালিদের বিশাল ভুমিকা ছিল, উমর কিন্তু দোষ খুঁজে পেয়ে ঠিকই খালিদ কে পদচ্যুত করেছিলেন এবং আরব জাহান সে টা বিনা বাক্য ব্যয়ে মেনে নিয়েছিলো। ডঃ ইউনুসের ব্যাপারে আমেরিকা সরকারকে চাপ প্রয়োগ করছে। আমার খুব লজ্জা লাগে যখন দেখি কিছু লোক এটাকে সমর্থন দিচ্ছে, আমার মনে হয় তারা চাচ্ছে তাদের দেশের সরকার অন্যায় চাপের কাছে মাথানত করুক।

আমিনীর ব্যাপারে আমার বিশেষ কিছু বলার নেই, শুধু এটুকু বলতে পারি তাকে কথা না বলতে দিলে আবার এই আমরাই বলবো দেশে বাক স্বাধীনতা নেই, গণতন্ত্র নেই।

ওয়াচডগ ভাইয়া, আমি রাজনীতি করিনা। কিন্তু যখন দেখি অযথা সমালোচনা করা হয় তখন কষ্ট লাগে ।আমরা কেনো জানি না গঠনমূলক সমালোচনা করতেই জানিনা। বর্তমান সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুল আছে, সেগুলি নিয়ে হরতাল ডাকিনা, আন্দোলন করিনা , সমালোচনা লিখিনা।আমরা হরতাল ডাকি বাড়ি নিয়ে, হরতাল ডাকি ছেলের মামলা নিয়ে, হরতাল ডাকি নারী নীতি আর শিক্ষা নীতি যেখানে ইসলাম বিরোধী কিছু নেই তা নিয়ে। অথচ যখন সপ্তাহের বেশীরভাগ দিন ডাক্তার রা কর্মক্ষেত্রে থাকে না, তা নিয়ে আন্দোলন করিনা, ইভ টিজিং-এর কারণে যখন কেউ মারা যায় তখন আন্দোলন করিনা, সরকারী অফিসে কোনো কাজে যখন ঘুষ চাওয়া হয় তখন আন্দোলন করিনা, শেয়ার বাজারের কালপ্রিট রা যখন ধরা-ছোয়ার বাইরে চলে যায় তখন আন্দোলন করিনা, সিএনজি চালকদের স্বেচ্ছাচারিতা নিয়ে আন্দোলন করিনা, ঢাকা শহরের অসহনীয় যান জট নিয়ে আন্দোলন করিনা, অবৈ্ধ বিজেএমইএ ভবন নিয়ে আন্দোলন করিনা, দ্রব্য মূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে আন্দোলন করিনা, ইত্যাদি ইত্যাদি।

আমি আবারো ওয়াচডগ ভাইয়া, আপনার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি যদি আমার কোনো লেখায় আপনি কষ্ট পেয়ে থাকেন। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে, অসংখ্য ধন্যবাদ সবাইকে।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s